Toke Union

এক নজরে টোক ইউনিয়ন

কালের স্বাক্ষী হয়ে তিন নদীর মোহনায় (শীতলক্ষ্যা, ব্রক্ষ্মপুত্র ও পুরাতন ব্রক্ষ্মপুত্র) দাড়িয়ে আছে কাপাসিয়া উপজেলার মধ্যে ২৪ টি গ্রামের সমন্বয়ে ৩ নং টোক ইউনিয়ন পরিষদ। শিক্ষা, সংস্কৃতি, ধর্মীয় অনুষ্ঠান পালন ও খেলাধুলা নিয়ে তার আপন গতিতে চলমান।toke-union

ক) নাম – ৩ নং টোক ইউনিয়ন পরিষদ

খ) আয়তন – ৩৮.৩৫ বর্গ কি: মি:

গ) লোকসংখ্যা – ৩৭,৬৬৯ জন

ঘ) গ্রাম সংখ্যা – ২৪ টি

ঙ) মৌজার সংখ্যা – ১৬ টি

চ) হাট/বাজার সংখ্যা – ১১ টি

ছ) উপজেলা থেকে যোগাযোগ ব্যবস্থা –

জ) শিক্ষার হার -৪৪.০২%

ঝ) সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় – ১৬ টি

ঞ) বে-সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় – ৫টি

ট) উচ্চ বিদ্যালয় – ৭ টি

ঠ) মাদ্রাসা – ১০ টি

ড) কলেজ – ১ টি

থ) গ্রাম সমূহের নাম – উলুসারা, টোক নগর, ঘোড়াদিয়া, ভেংগুরদী, পাকুরদিয়া, ছাটারব, বড়চালা, কেন্দুয়াব, বীর উজলী, দিঘীর পাড়, বড়দিয়া, চেওরাইট, সালুয়াটেকী, ইসলামপুর, নয়ন বাজার, শহর টোক, সুলতানপুর, নয়াসাঙ্গুন, কাঁশেরা, ডুমদিয়া, ঘোষেরকান্দি, আড়ালিয়া, পাঁচুয়া, দিঘাব।

দ) ইউনিয়ন পরিষদের জনবল

নির্বাচিত পরিষদ সদস্য – ১৩ জন

ইউনিয়ন পরিষদ সচিব – ১ জন

গ্রাম পুলিশ – ৭ জন

গ্রাম ভিত্তিক লোক সংখ্যা

টোক ইউনিয়নের গ্রামভিত্তিক লোকসংখ্যা সমূহ:

ক্রমিক নং মৌজার নাম গ্রামের নাম জনসংখ্যা পুরুষ মহিলা  
আড়ালিয়া আড়ালিয়া ৪,৫৬১ ২,২১৫ ২,৩৪৬  
দিঘাব দিঘাব ৭৭০ ৩৭৩ ৩৯৭  
ডুমদিয়া ডুমদিয়া ২,৪৮৬ ১,২০২ ১,২৮৪  
ঘোষেরকান্দী ঘোষেরকান্দী ২,৫১৮ ১,২১০ ১,৩০৮  
ইসলামপুর ইসলামপুর ৩১২ ১৬৩ ১৪৯  
কাশেরা কাশেরা ১,৭৮৮ ৮৬১ ৯২৭  
কেন্দুয়াব কেন্দুয়াব ১,৩৮১ ৬৬২ ৭১৯  
নয়াসাঙ্গুন নয়াসাঙ্গুন ৮৬১ ৪২৮ ৪৩৩  
নয়নবাজার নয়নবাজার ৭৩২ ৩৯৭ ৩৩৫  
১০ পাঁচুয়া পাঁচুয়া ৫,০২৮ ২,৪৬৪ ২,৫৬৪  
১১ শহরটোক শহরটোক ১,২৬১ ৬৩২ ৬২৯  
১২ সালুয়াটেকী সালুয়াটেকী ১,২০১ ৫৬৬ ৬৩৫  
১৩ সুলতানপুর সুলতানপুর ২,৬০০ ১,২৮৯ ১,৩১১  
১৪ টোকনগর টোকনগর ২৭৮৯ ১,৩৯৪ ১,৩৯৫  
১৫ উজলী বেংগুরদী ৮১৭ ৪০৪ ৪১৩  
১৬ ঘোড়াদিয়া ৫৬৫ ২৮০ ২৮৫  
১৭ ছাটারবর ৯০৪ ৪৪৯ ৪৫৫  
১৮ পাকুরদিয়া ২৪৮ ১২৮ ১২০  
১৯ বড়চালা ৮৯৪ ৪৫৯ ৪৩৫  
২০ দিঘীরপার ১,২৪৩ ৫৯৬ ৬৪৭  
২১ চেওরাইট ৯৮১ ৪৪১ ৫০০  
২২ বড়দিয়া ১,৬১১ ৭৬৬ ৮৪৫  
২৩ বীরউজলী ৩,০৪০ ১,৪৯৭ ১,৫৪৩  
২৪ উলুসারা ২,১৮৪ ১,০৯৪ ১,০৯০  
      ৪০,৭৩৫ ১৯,৯৭০ ২০,৭৬৫  

যোগাযোগ ব্যবস্থ্যা:

কাপাসিয়া থেকে টোক  বাজারে আসতে বাস অথবা সি এন জি ভাড়া মাত্র ৩০/= টাকা.প্রথমে কাপাসিয়া থেকে লতাপাতার বাজার,তারপর মিয়ার বাজার ভাড়া মাত্র ১০ টাকা.তারপর মিয়ার বাজার থেকে আমরাইদ বাজার ভাড়া মাত্র ১০ টাকা.তারপর আমরাইদ বাজার পার হয়ে বীর উজলী বাজার ভাড়া মাত্র ১০ টাকা.তারপর বীরউজলী থেকে টোক আসতে ভাড়া মাত্রর্১০ টাকা সিএন জি করে আসা যায় অথবা অটো রিকশা ও চলে।moshzid-20

টোকের ঐতিয্য ও ইতিহাস:

বাংলাদেশ পানি পলাবিত বিশাল নিম্ন অঞ্চলকে এক সময় বলা হত ভাটি বাংলা।আর এ ভাটি বাংলার রাজা ছিলেন ইঁশা খাঁ মসনদ-ই-আল(১৫৩৭-১৫৯৯)।ইশা খাঁর পরিনত বয়স থেকে মৃত্যু অবধি গোটা সময়টিতে জালাল উদ্দীন মুহাম্মদ আকবর(১৫৫৬-১৬০৫) ছিলেন ভারতের সম্রাট।গোটা উপমহাদেশ ছিল তার শাসনাধীন।কিনতু বাংলাদেশের উপর তিনি সারা জীবননেও পুর্ন আধিপত্য স্থাপন করতে পারেন নি।সম্রাট আকবরের দরবারের ইতিহাস লেখন আবুল ফযন ইসাখানকে বলেছেন।মর্জুবানে ভাটি,যার অর্থ হল ভাটির রাজা সম্রাট আকবর ভাটির এই রাজাকে পরাজিত কর বাংলাদেশকে তার পুর্ন কৃতিত্ব আনার উদ্যোগে নিয়ে একের পর এক অভিজান পরিচালনা করতে থাকেন।এই সকল অভিজান মোকাবেলা করতে ইশা খার বিভিন্ন জমিদারকে সাথে নিয়ে একটি সামরিক বাহিনী গড়ে তোলেন।যাকে ইতিহাসে বারভূইয়া বলা হয়।এই বার ভুইয়ার প্রধান ছিলেন ইশাখা।ভাটির রাজা ইশাখানের নৌবাহিনীকে বলা হতো কারায়।ইসাখানের নাওয়ারায় সাথে যুক্ত এসব পদবীধারী পরিবার হাওর অধ্যুযিত ভাটির জেলা কিশোরগঞ্জ পাওয়া যায়।ইসা খার জঙ্গল বাড়ীর আগমন কালে কেনার ব্যবহার এবংকাওনার নদীর উল্লেখ এতে পাওয়া যায়।এই সব নদী পথে যাতায়াতের বর্ননা রয়েছে।বর্তমানে গাজীপুর জেলা কাপাসিয়া থানা অবস্থিথ এ বানা নদীতে সম্রাট আকবরের প্রেরিত সেনাপতি সাথে ইশা খার কেীশল বাস্তবায়নের জন্য সম্রাট আকবরের বয সেনাপতি মানসিংহ তার অস্রঘর গড়ে তোলে বর্তমানে তাকে বলা হয় টোক নয়ন বাজার নদীর ঘাট।ইশা খা তার যুদ্ধে যে বানার ব্যবহার করা হয়েছিল তা বর্তমানে টোক নদী বা বহ্মপুত্র নদী নামে পরিচিত। এর আগে টোক কে বলা হত তওক,তাগমা,তাফেক অতপরে যুদ্ধে অস্রঘর বা অস্র তোটক বা পরিবর্তীতে টোক শব্দে পরিনত হয়।

দর্শনীয় স্থান

নাম কিভাবে যাওয়া যায় অবস্থান
সুলতানপুর দরগাপাড়া শাহী মসজিদ ঢাকা থেকে বাসে করে সোজা টোকে আসতে হবে। তারপর টোক থেকে অটো করে সোজা সুলতানপুর শাহী মসজিদের কাছে। সুলতানপুর গ্রামে অবস্থিত।

প্রখ্যাত ব্যাক্তিত্ব

১/মা: রহমতউল্লাহ  তিনি স্বাধীনতা যুদ্ধে গন মানুষের নেতা ছিলেন।

২/তৈয়ব আলী ডা: তিনি ও স্বাধীনতা যুদ্ধে গন মানুষের নেতা ছিলেন।

৩/এ বি  এম জামসেদ আলী মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক।

৪/ডা: হোসেন আলী প্রশাসক টোক ইউনিয়ন পরিষদ বৃটিশ আমল।তিনি ২২ বছর কাল টোক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ছিলেন।

৫/ডা: সিরাজুল ইসলাম। গ্রাম ডা: হিসেবে তিনি দীর্ঘদিন যাবত সুনামের সাথে মানুষের সেবা করে গেছেন। তিনি এক সময় আউটডোর ডিসপেনসারীতে নিয়োজীত ছিলেন।

৬/শরীফ মোমতাজ উদ্দীন আহমেদ। গ্রাম: সালোয়াটেকী।একটি কলেজ এবং বিভিন্ন মসজিদ গ্রামের প্রয়োজনে তৈরী করে দিয়েছেন। তাই সবাই তাকে দানবীর হিসেবে খ্রাতি দিয়েছেন।

ভাষা ও সংস্কৃতি

২৪ টি গ্রাম নিয়ে টোক ইউনিয়ন গঠিত।ভূ-প্রকৃতি ও ভৌগলিক অবস্হান এই ইউনিয়নের ভাষা ও সংস্কৃতি গঠনে ভূমিকা রেখেছে।এখানে ভাষার মূল বৈশিষ্ট্য বাংলাদেশের অন্যান্য স্থানেরমতো হলে ও কিছুটা বৈচিত্র খুজে পাওয়া যায়।এই অঞ্চলের ভাষার সাথে গাজীপুর, ময়মনসিংহ, ও কিশোরগঞ্জ আঞ্চলিক ভাষার কিছুটা মিল খুজে পাওয়া যায়।

খাল ও বিল

ক্রমিক নং  নাম অবস্হান
লেদার বেপারীর বিল শহরটোক/সালোয়াটেকী
মালপুরী/কেইরা বিল সুলতানপুর
বড়বিল সালোয়াটেকী
আড়ালিয়া বিল আড়ালিয়া
নর গাইলা বিল,সামনা বিল,দামচরা,বাইননার বিল কাঁশেরা
ডাকাততা বিল ডুমদিয়া
ফকির বিল পাঁচুয়া
বরবিল পাঁচুয়া
কসম বিল,ডুপাকুনা বিল বড়দিয়া
১০ মহিষমাতান বিলজোগলা কুরউত্তরে বিল ঘোড়াদিয়া
১১ আংগাহেটটা বিল ছাটারবর,ভেংগুরদী,ঘোড়াদিয়া
১২ কানপনা বিল ,তালতলা বিল ছাটারবর,
১৩ বাহশতলি ,রাশিদা বিল ভেংগুরদী
১৪ সাপ মরা বিল,নিতাই বিল,হাতির বিল,বাউল তলী উলুসারা
১৫ মাইনতলা,মাগুননা বিল,লইটা বিল,কুমার পুরী,ডাকাইতা বিল টোক নগর

হাট বাজারের তালিকা

ইজারাভুক্ত হাট বাজারের তালিকা:

ক্রমিক নং ইউনিয়নের নাম হাট-বাজারের নাম বাংলা ১৪১৭ সন ইজারা বাংলা ১৪১৮ সন ইজারা বাংলা ১৪১৯ সন ইজারা তিন বৎসরের গড়
টোক টোক নয়ন বাজার ৮,১৭,০০০/- ৬,১১,০০০/- ১০,০০,০০০/ ৮,০৯,৩৩৪/-
  উজলী দিঘীর পাড় বাজার ৮,০০০/- ৮,০০০/- ৮০০০/-
  উলুসরা বাজার  
  বীর উজলী বাজার ৯৩,১০০/- ১,৫০,১০০/- ১,০৫,২০০/- ১,১৬,১৩৪/-
  আড়ালিয়া বাজার ৪,৩২০/- ৩,৩০০/- ৩,৮১০/-

বেসরকারী হাটবাজার

১/টেক নগর হাট

২/ ঘোষেরকান্দী বাজার

৩/গঙ্গার বাজার/

৪/পাঁচুয়া বাজার

৫/ ডুমদিয়া বাজার

৬/দিঘাব